করোনায় সামাজিক বিচ্ছিন্নতা বজায় রাখতে সচেষ্ট আনোয়ারা

0

সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা হচ্ছে আনোয়ারায়। এর প্রভাবে আনোয়ারা অনেকটাই লকডাউনের মত পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এ বিষয়ে প্রশাসন প্রচারণাও চালাচ্ছে।

‘স্টে এট হোম’- নির্দেশনার প্রভাবে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলায় এখন শুনশান নিরবতা। বাঁশখালী, পেকুয়া, চন্দনাইশ ও সাতকানিয়ার যাত্রীদের আনোয়ারার পিএবি সড়ক দিয়ে চট্টগ্রাম শহরে যাতায়াত, চায়না অর্থনৈতিক জোন, বঙ্গবন্ধু টানেলের বিশাল কর্মজজ্ঞের আনোয়ারায় এখন কোন ব্যস্ততা নেই।

সরেজমিনে বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সকালে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরা দেখা যায়, রায়পুর, বারশত, বটতলী, বৈরাগ, বারখাইন, চাতরী, বরুমচড়া ও আনোয়ারা সদরের বিভিন্ন এলাকায় সাধারণ মানুষ অনেকটা আতংকেই ঘর থেকেই বের হচ্ছে না। বিশেষ করে প্রবীণদের দেখাই যাচ্ছে না কোথাও। হাট-বাজারগুলোও অনেকটা লকডাউনের মতোই স্থবির। তরকারি, ঔষধ ও নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের কিছু দোকান খোলা থাকলেও ক্রেতার সংখ্যা নগণ্য। আনোয়ারার ব্যস্থতম এলাকা চাতরী চৌমুহনী বাজারে কয়েকজন নিজ বাড়ি যাওয়ার জন্য গাড়ির অপেক্ষা করলেও কয়েকটি রিকশা ছাড়া কোন যানবাহন সড়কে দেখা যায়নি।

চাতরী চৌমুহনী বাজারের ওষুধ ব্যবসায়ী আলী হায়দার দিদার বলেন, অন্যান্য সময় চেম্বারে ডাক্তার বসেন । দিনে অন্তত ২০-৩০ হাজার টাকার বেঁচাকেনা হলেও আজ কেবল ২-৩ হাজার টাকার ওষুধ বিক্রয় হয়। সকালে ডাক্তার চেম্বারে আসলেও রোগী ছিল মাত্র ৮ জন।

এদিকে আনোয়ারায় সেনাবাহিনী টহল তেমন দেখা না গেলেও উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ জোবায়ের আহমদ, সহকারি কমিশনার (ভূমি) তানভীর আহমদ চৌধুরী, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ নিয়মিত অভিযান ও প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। ফলে লোকজন অনেকটা সতর্ক অবস্থানে আছে।

আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ বলেন, ‘জনগণের নিরাপত্তায় পুলিশ সার্বক্ষণিক মাঠে থাকবে। জনসমাগম যেন ঘটতে না পারে তার জন্য পুলিশ বিভিন্ন হাট-বাজার এলাকায় অবস্থান করবে। উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা আইন -শৃঙ্খলা বাহিনীর সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন এলাকার সর্বস্তরের মানুষ।’

আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ জোবায়ের আহমেদ বলেন, ‘করোনা প্রতিরোধে ৮ সদস্যের কমিটি করা হয়। যে কোন মুহূর্তে মানুষ যাতে যোগাযোগ করতে পারে সে জন্য উপজেলায় কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। বিদেশ ফেরতদের তালিকা ধরে সরকারি নির্দেশনা মতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। হাট-বাজারসহ সব ধরণের জনসমাগম ঘটলেই আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

উল্লেখ্য, জনসমাগম ঠেকাতে বুধবার উপজেলার হাটবাজার গুলো বন্ধ ঘোষণা করে প্রশাসন । উপজেলায় খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম, বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের বাড়ি-বাড়ি টাঙ্গিয়ে দেয়া হচ্ছে লাল পতাকা, চারদিন ধরে চলছে পুলিশের মাইকিং সেই সাথে করছেন লিফলেট বিতরণ। সব মিলিয়ে আনোয়ারায় অনেকটাই স্ব- ঘোষিত লকডাউনের পরিবে্রশ বিরাজ করছে।

এসএস

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন