আক্রান্ত
১৮২৪৪
সুস্থ
১৪৩৬১
মৃত্যু
২৮৪

ওসি হিমাংশুসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা, তদন্তভার পিবিআইতে

0

চট্টগ্রামের বোয়ালখালী থানার সাবেক ওসি হিমাংশু কুমার দাশসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে একজন শিক্ষানবিশ আইনজীবীকে নির্যাতনের অভিযোগ আমলে নিয়ে তদন্তের আদেশ দিয়েছে আদালত। চট্টগ্রাম আদালতের শিক্ষানবিশ আইনজীবি সমর চৌধুরী এ অভিযোগ দায়ের করেন।

সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেম মোহাম্মদ নোমানের আদালত এ আদেশ দেন। এ অভিযোগটি তদন্তের জন্য পিবিআইকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

বাদির আইনজীবী এডভোকেট জুয়েল দাশ এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

এ মামলায় অন্য আসামীরা হলেন বোয়ালখালী থানার তৎকালীন এসআই আতিকুল্লাহ, এসআই আরিফুর রহমান, বোয়ালখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহবুব আলম আখন্দ, এসআই আবু বকর সিদ্দিকী, এসআই রিপন চাকমা, এএস আই আলাউদ্দিন, এসআই দেলাওয়ার হোসেন, লন্ডন প্রবাসী সঞ্জয় দাশ, সঞ্জয় দাশের সহকারী সজল দাশ, বোয়ালখালী উপজেলার সরোয়াতলী ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের তৎকালীন চৌকিদার দিদারুল আলম।

তাদের বিরুদ্ধে ১২০(খ), ১৬১, ১৬৬, ২২০, ৩০৭, ৩২৩, ৩৬৪, ৩৭৯, ৩৮৫, ৩৮৬, ৩৮৭, ১৪৯, ৫০৬, ২১১ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ২৭ মে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আদালত সংলগ্ন চট্টগ্রাম নগরের জহুর হকার্স মার্কেটের সামনে থেকে সমর চৌধুরীকে তুলে নিয়ে যায় বোয়ালখালী থানা পুলিশ। পরদিন ২৮ মে সকালে ৩১০ পিস ইয়াবা ও একটি একনলা বন্দুক হাতে ধরিয়ে দিয়ে ছবি তুলে সেই ছবি বোয়ালখালী থানা পুলিশ গণমাধ্যামে পাঠায়। এ সময় ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধারের মামলা দিয়ে জেলে পাঠায় সমর কৃষ্ণ চৌধুরীকে।

২৯ মে বিকেলে সমর কৃষ্ণ চৌধুরীর মেয়ে তমালিকা চৌধুরী বোয়ালখালীতে এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের বিরুদ্ধে তার বাবাকে মাদক ও অস্ত্র দিয়ে মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ করেন।

সমর কৃষ্ণ চৌধুরীর পরিবার দাবি করেন, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক সঞ্জয় দাশের সঙ্গে বিরোধের জেরে বোয়ালখালী থানা পুলিশ সমর কৃষ্ণ চৌধুরীকে চট্টগ্রাম নগর থেকে তুলে নিয়ে মাদক ও অস্ত্র দিয়ে মামলায় ফাঁসিয়ে দিয়েছে।

২০১৮ সালের ২৪ জুন মাদক মামলা ও ১০ জুলাই অস্ত্র মামলায় আদালত থেকে জামিন পান সমর কৃষ্ণ চৌধুরী। ১২ জুলাই চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি। ২৮ আগস্ট জেলা ও দায়রা জজ মো. ইসমাইল হোসেনের আদালত সমর কৃষ্ণ চৌধুরীকে অস্ত্র আইনে দায়ের করা মামলা থেকে খালাস দেন।

এই ঘটনায় চট্টগ্রামের তৎকালীন এসপি নুরেআলম মিনা একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে অভ্যন্তরীণ তদন্ত কমিটি গঠন করেন। তদন্তে পুলিশের অপরাধ প্রমাণ পাওয়ায় অভিযুক্তদের ক্লোজ করা হয়েছিল।

এফএম/এমএফও

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

ManaratResponsive

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন
ksrm