আক্রান্ত
৯৮৮৮
সুস্থ
১১৯৫
মৃত্যু
১৮৯

কানেকশন/ এক দামপাড়ায় করোনার জালে আটকা ৫ এলাকা

1
high flow nasal cannula – mobile

চট্টগ্রামের দামপাড়ায় এক বৃদ্ধের শরীরে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব মেলার পর গত ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রাম নগরী ও জেলার পাঁচটি এলাকার মোট ১৩টি বাড়ি লকডাউন করেছে প্রশাসন। প্রশাসনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী এই ১৩টি বাড়ির লোকজন গত ১৪ দিনের মধ্যে চট্টগ্রামে আক্রান্ত ওই রোগী ও দুই নারীর সংস্পর্শে এসে সংক্রমিত হতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। পাঁচটি ভিন্ন ভিন্ন এলাকায় প্রশাসনিক এই লকডাউনের আওতায় পড়েছে মোট ৪০টি পরিবার।

লকডাউন হওয়া এই ১৩টি বাড়ির ৭টি বাড়ি চট্টগ্রাম মহানগরে এবং বাকি ৬টি বাড়ি দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৩টি উপজেলায়।

এর মধ্যে শুক্রবার (৩ এপ্রিল) রাতে দামপাড়ার এক নম্বর গলিতে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির বাড়িসহ একই গলির ৬টি বাড়ি লকডাউন করে দেয় সিএমপি। চট্টগ্রাম নগর পুলিশের (সিএমপি) চকবাজার থানা পুলিশ বাড়িগুলো লকডাউন করে। প্রথম দফায় লকডাউন হওয়া ওই ৬ বাড়িতে মোট ২০টি পরিবার বসবাস করছে বলে জানান স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর গিয়াস উদ্দিন। নজরদারি করতে ওই এলাকায় ৯ পুলিশ সদস্যের একটি টিম মোতায়েন করা হয়েছে।

সাতকানিয়ার পুরানগড়
দামপাড়ায় ৬ বাড়ি লকডাউনের কিছুক্ষণ পর শুক্রবার মধ্যরাতে সাতকানিয়া উপজেলার পুরানগড় ইউনিয়নে ৪টি বাড়ি লকডাউন করে উপজেলা প্রশাসন। চট্টগ্রামের করোনা আক্রান্ত বৃদ্ধের মেয়ে ও মেয়ের শ্বশুরবাড়ি ওই এলাকায়। গত ১২ মার্চ ওমরা হজ পালন করে আসা এই দুই নারী থেকে চট্টগ্রামের আক্রান্ত রোগী সংক্রমিত হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। সাতকানিয়ায় লকডাউন হওয়া এই ৪ বাড়িতে মোট ১২টি পরিবার রয়েছে বলে জানিয়েছেন সাতকানিয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূর এ আলম। এই চারটি বাড়িতে লকডাউন নিশ্চিত করতে স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বারের নেতৃত্বে গ্রাম পুলিশের একটি দল কাজ করছে। এছাড়া ওই ১৪ পরিবারের মধ্যে ২ পরিবারকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খাদ্য সহায়তা পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ইউএনও নূর এ আলম।

চন্দনাইশের জামিজুরী
এরপর রাত ২টার দিকে চট্টগ্রামের চন্দনাইশ থানার দোহাজারী পৌরসভার জামিজুরী গ্রামের একটি বাড়ি লকডাউন ঘোষণা করে চন্দনাইশ উপজেলা প্রশাসন। লকডাউন হওয়া ওই বাড়িতে মোট তিনটি পরিবার বসবাস করে বলে জানিয়েছেন চন্দনাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেশব চক্রবর্তী। বাড়ির ১৫ জন সদস্য কয়েকদিন আগে দামপাড়ার করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির বাসায় এবং সাতকানিয়ায় যে বাড়িতে আক্রান্ত ব্যক্তির সৌদি আরব ফেরত মেয়ে ও মেয়ের শ্বাশুড়ি থাকেন সে বাড়ির দাওয়াতে অংশ নিয়েছিলেন। তাই প্রশাসন বাড়িটি লকডাউন করে।

আগ্রাবাদের তিনতলা বাড়ি
শনিবার (৪ এপ্রিল) সকালে নগরীর ডবলমুরিং থানার আগ্রাবাদ উত্তর পাঠানটুলী ওয়ার্ডে চাঁন মিয়ার বিল এলাকার একটি তিনতলা বাড়ি লকডাউন করে প্রশাসন। পাঠানটুলীতে লকডাউন হওয়া এই বাড়িটির মালিকের ছোট বোনের জামাই হচ্ছেন করোনা আক্রান্ত ওই রোগী। বোন জামাই অসুস্থ হওয়ার পর তাকে দেখতে গিয়েছিলেন তিনি। এই বাড়িতে মোট ৩টি পরিবারের বসবাস। চট্টগ্রাম প্রতিদিনের সাথে মোবাইলে কথা হয় লকডাউন হওয়া ওই বড়ির মালিকের সাথে। তিনি বলেন, ‘আমার বোন জামাই অসুস্থ হওয়ার পর তাকে দেখতে গিয়েছিলাম আমি। তার দেখাশোনা করার মত ছেলে পেলে নেই। তাই গিয়েছিলাম। সেখানে বেশিক্ষণ থাকিনি আমরা। অবস্থা খারাপ দেখে চলে এসেছি। এখন লকডাউনে আছি। আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’ ইতিমধ্যে ওই বাড়ির সামনে পুলিশ মোতায়েন করেছে ডবলমুরিং থানা। লকডাউনে বন্দি হওয়া এই ৩ পরিবারের খোঁজখবর রাখছেন ডাবলমুরিং থানা ও স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ জাবেদ।

পটিয়ার শেয়ানপাড়া
চট্টগ্রামের পটিয়া পৌরসভার শেয়ানপাড়ার একটি বাড়িও শনিবার (৪ এপ্রিল) লকডাউন করে দিয়েছে প্রশাসন। চট্টগ্রামের দামপাড়ায় করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির এক মেয়ের শ্বশুরবাড়ি ওই স্থানে। পটিয়ায় লকডাউন হওয়া ওই বাড়িতে ২টি পরিবারে মোট ১১ জন মানুষ রয়েছেন। পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারহানা জাহান উপমা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এখানেও এলাকাবাসী নিজেরা উদ্যোগ নিয়ে গোটা শেয়ানপাড়া এলাকা লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে।

সিপি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Manarat
1 মন্তব্য
  1. আলম বলেছেন

    চট্টগ্রামের সিইপিজেড বন্দরটিলা এলাকার বাড়িওয়ালা বাড়ি ভাড়ার জন্য ভাড়াটেদের যে ভাবে চাপ দিচ্ছে,এটা কি ঠিক করছে অন্তত এই এক মাসের ভাড়া মাপ করে দেয়া দরকার ছিল, কারন ভাড়া দিবে কি ভাবে তারা এখন ঠিক ভাবে খেতে পারছে না ভাড়া দিবে কি ভাবে, এগুলো কি চট্টগ্রামের মেয়র বা কাউন্সিলর দেখে না, আপনারা যদি একটু দেখেন তাহলে আমরা একটু ভালো থাকতে পারি, তাই চট্টগ্রামের মেয়র ও কাউন্সিলরদের ও সরকারের কাছে আমাদের এই দুঃসময়ে আপনারা পাশে দাঁড়িয়ে আমাদের একটু বাঁচতে সাহায্য করুন, আপনাদের কাছে আমার আকুল আবেদন, দয়া করে এই খেটে খাওয়া মানুষের কথা গুলো একটু ভেবে দেখুন,আর কিছু বলার নেই আপনাদের উপর আমাদের দুঃখ কষ্ট ছেড়ে দিলাম একটু সাহায্য করুন আমাদের,,,,জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু,,,,,

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

আরও পড়ুন

পিপিই-মাস্ক মানসম্মত কিনা সেই প্রশ্নও উঠছে

জটিল হচ্ছে লড়াই, করোনার থাবায় চট্টগ্রামের ১৯ চিকিৎসক

নারীদের তুলনায় ৫ গুণ বেশি পুরুষ আক্রান্ত

২১ থেকে ৪০— চট্টগ্রামে তরুণরাই করোনার সহজ শিকার

ksrm