ঈদ যাত্রার রেল টিকিট মিলবে শুধুই অনলাইনে, কালোবাজারিদের মাথায় হাত

ঈদ যাত্রায় ঘরে ফেরা মানুষের পছন্দ রেলপথে ভ্রমণ। তবে টিকিট কালোবাজারির দৌরাত্ম টিকিটের জন্য স্টেশনে নির্ঘুম রাত কাটাতে হয়। টিকিট না পেয়ে খালি হাতে ফিরেন অনেকেই।

তবে এই বছর চিরচেনা এই চিত্র আর থাকছেনা। এবারের ঈদ যাত্রার শতভাগ টিকিট অনলাইনে বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। ফলে ঘরে বসে কেনা যাবে টিকিট।

তবে কাউন্টারে কেবল আসনবিহীন সিটের টিকিট কাটা যাবে৷ ফলে যাত্রীদের দুর্ভোগ ও কালোবাজারিদের দৌরাত্ম দূর হবে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, কাউন্টারে যাত্রীদের ভোগান্তি দূর করতে আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ট্রেনের শতভাগ টিকিট অনলাইনে বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

মঙ্গলবার (২১ মার্চ) রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজনের সভাপতিত্বে ‘ঈদ উপলক্ষে ট্রেন পরিচালনা’ সংক্রান্ত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

একই সঙ্গে এবার যাত্রার ১০ দিন আগে অগ্রিম টিকিট বিক্রির সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী ৭ এপ্রিল থেকে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু করবে সংস্থাটি।

ঈদ উপলক্ষে ১০ জোড়া বিশেষ ট্রেন পরিচালনা করবে রেলওয়ে। ঈদযাত্রায় শতভাগ অনলাইন টিকিট বিক্রির প্রক্রিয়াটি সফলভাবে বাস্তবায়ন হলে আগামী ১ মে থেকে ট্রেনের শতভাগ টিকিট অনলাইনে বিক্রি হতে পারে।

এদিকে রেলভবন সূত্র জানায়, ২২ এপ্রিল ঈদুল ফিতরের সম্ভাব্য দিন ধরে ঈদের ট্রেন পরিচালনা করা হবে। ৭ এপ্রিল বিক্রি করা হবে ১৭ এপ্রিলের অগ্রিম টিকিট। এছাড়া ৮, ৯, ১০ ও ১১ এপ্রিল বিক্রি করা হবে যথাক্রমে ১৮, ১৯, ২০ ও ২১ এপ্রিলের অগ্রিম টিকিট।

ঈদের সব টিকিট অনলাইনে বিক্রি করা হবে। তবে কাউন্টার থেকে শুধু স্ট্যান্ডিং বা আসনবিহীন টিকিট দেয়া হবে যাত্রীদের।

এদিকে শতভাগ টিকিট অনলাইনে ছাড়ার সিদ্ধান্তে সাধারণ যাত্রীদের দুর্ভোগ দূর হলেও কালোবাজারিদের মাথায় বাজ পড়েছে।

তবে সংশ্লিষ্টদের আশংকা, আসনবিহীন টিকিট কাউন্টারে টিকিট কাটার সুযোগ থাকায় কালোবাজারিরা কিছুটা তৎপর হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। তাই এবারের ঈদে আসনবিহীন টিকিটে নিয়ে কালোবাজারির দৌরাত্ম যাত্রীদের কিছুটা ভোগাতে পারে।

সিএম/এমএফও

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!