ব্যারিস্টার শাকিলাসহ হামজা ব্রিগেডের ২৮ জঙ্গির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন পেছালো

0

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর গহীন অরণ্যে জঙ্গি সংগঠন ‘শহীদ হামজা ব্রিগেডের’ ২৮ সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন পিছিয়ে আগামী ২৭ জুন নির্ধারণ করেছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার (১১ জুন) সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালের বিচারক আব্দুল হালিম এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

এর আগে র‌্যাবের চট্টগ্রাম জোনের উপ সহকারী পরিচালক গোলাম রব্বানীর দায়ের করা মামলায় আদালতে কারাবন্দি আট আসামিকে কড়া নিরাপত্তায় হাজির করা হয়। এরা হলেন হামজা ব্রিগেডের সামরিক প্রধান মনিরুজ্জামান ডন, আজিজুল হক, আশফাকুর রহমান, আমিরুল ইসলাম হামজা, হাবিবুর রহমান, শফিকুল ইসলাম শেখ, আবদুল খালেক হোরাইরা, মোবাশ্বের সামাদ খান ও আমির হোসেন ইসহাক। তবে অন্যতম অভিযুক্ত ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা আদালতে হাজির হননি। তদন্তে জঙ্গী সংগঠন ‘শহীদ হামজা ব্রিগেড’কে এক কোটি ৮ লাখ টাকা দেয়ার অভিযোগে ২০১৫ সালের ১৮ আগস্ট ঢাকার ধানমন্ডি থেকে বিএনপি নেত্রী ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা দুই সহযোগী আইনজীবীসহ গ্রেফতার হয়েছিলেন। ৬ জুন ২০১৬ শাকিলা জামিনে মুক্তি পান। চলতি বছরের শুরুর দিকে দেশ ছেড়ে শাকিলা ফারজানা পাড়ি জমান যুক্তরাজ্যে। সেখানে তিনি আবেদন করেছেন রাজনৈতিক আশ্রয়েরও। মামলায় ১০২ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।

শাকিলার আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবদুস সাত্তারের দাবি, শাকিলা ফারজানা চিকিৎসার জন্য যুক্তরাজ্য গেছেন। সেজন্য আজকে আদালতের কাছে সময়ের আবেদন জানানো হয়েছে। আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে ২৭ জুন অভিযোগ গঠনের দিন নির্ধারণ করেছেন।

hamza-brigade-chittagong
হাটহাজারীর একটি মাদ্রাসা থেকে আটক ১২ জনের স্বীকারোক্তিতে উঠে আসে জঙ্গি সংগঠন হামজা ব্রিগেডের নাম

বিষয়টি নিশ্চিত করে ট্রাইব্যুনালের পিপি অ্যাডভোকেট মনোরঞ্জন দাশ বলেন, ‘বাঁশখালী থানায় দায়ের করা সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় ব্যারিস্টার শাকিল ফারজানাসহ ২৮ জনের বিরুদ্ধে আজকে অভিযোগ গঠনের কথা ছিল। কিন্তু আদালত এক আবেদনের প্রেক্ষিতে অভিযোগ গঠনের সময় পিছিয়ে আগামী ২৭ জুন নির্ধারণ করেন।’

২০১৫ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি হাটহাজারীর মাদরাসাতুল আবু বকরে অভিযান চালিয়ে ১২ জনকে আটক করেছিল র‌্যাব। জব্দ করা হয়েছিল কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ধর্মীয় বই। ওই মাদরাসা তাদের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হতো। মাদরাসায় তাদের মোটিবেশন চালানো হতো। জঙ্গীদের দেওয়া তথ্যে দুই দিন পর ২১ ফেব্রুয়ারি বাঁশখালীর লটমণি পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে অস্ত্র-গুলিসহ পাঁচ জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করা হয়। এই পাহাড়ে চলতো তাদের সামরিক প্রশিক্ষণ। ২৮ ফেব্রুয়ারি হালিশহর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে ৭৬টি হাতবোমা, বোমা তৈরির বিপুল সরঞ্জামসহ আরো তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছিল র‌্যাব। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এই সংগঠনের ২৮ জনকে আটক করতে সক্ষম হয়েছিল র‌্যাব।

বাঁশখালির গহীন পাহাড় থেকে হামজা ব্রিগেডের পাঁচটি একে ২২, একে ২২-এর ১০টি ম্যাগাজিন, একটি বিদেশী পিস্তল, একটি পিস্তলের ম্যাগাজিন, একটি একনলা বন্দুক, একটি এলজি, ২ হাজার ১৫৫ রাউন্ড পয়েন্ট টুটু বোরের গুলি, ৫০১ রাউন্ড শটগানের গুলি উদ্ধার করেছিল র‌্যাব। এসব ঘটনায় চারটি মামলা দায়ের করা হয় হাটহাজারী, বাঁশখালী, কোতোয়ালী ও হালিশহর থানায়।

Loading...
আরও পড়ুন