s alam cement
আক্রান্ত
৫৪৮০৭
সুস্থ
৪৬১৯১
মৃত্যু
৬৪২

অনলাইনে নয়, সশরীরেই চবির আটকে থাকা পরীক্ষা নেয়ার পক্ষে ডিনরা

0

করোনাভাইরাসের কারণে আটকে থাকা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) বিভিন্ন বিভাগের অসমাপ্ত পরীক্ষা অনলাইনে নয়, সশরীরেই নেয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন বিভিন্ন অনুষদের ডিনরা। তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে আগামী ১৫ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সভায়।

বৃহস্পতিবার (২৭ মে) বিকেলে অনলাইনে পরীক্ষা নেয়ার বিষয়ে গঠিত কমিটির প্রথম সভায় তারা এই মতামত দেন।

বিষয়টি চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে নিশ্চিত করেছেন একটি অনুষদের ডিন। নাম প্রকাশ না করা শর্তে তিনি বলেন, ‘আমরা (ডিনরা)বিভিন্ন বিভাগের আটকে থাকা পরীক্ষা সশরীরে নেয়ার পক্ষে আমরা নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কারন শিক্ষার্থীরা যে অর্ডিন্যান্সে ভর্তি হয়েছে সেখানে অনলাইনে পরীক্ষা নেয়ার বিষয়টি নেই। সেক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে কীভাবে পরীক্ষাগুলো নেয়া যায়, সে বিষয়ে আমরা মতামত দিয়েছি। তবে সেটা হবে নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অর্থাৎ বিভাগসমূহের একাডেমিক কমিটি, ফ্যাকাল্টি মিটিং ও একাডেমিক কাউন্সিলের মাধ্যমে সিদ্ধান্তটা নিবো। আর শিক্ষামন্ত্রীও বলেছেন করোনা পরিস্থিতি ভালোর দিকে গেলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হলে পরীক্ষাগুলোও নেয়ার চিন্তা ভাবনা আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা বিভাগগুলোকে জানিয়ে দিয়েছি পরীক্ষাগুলো কীভাবে নেয়া যায় আগামী ৩ জুনের মধ্যে যেন একাডেমিক কমিটির মিটিং করে তারা যেন একটা সিদ্ধান্ত জানায়। এরপর তা ফ্যাকাল্টি মিটিংয়ের পর ১৫ জুন একাডেমিক কমিটির সভায় চূড়ান্ত হবে। তবে ভবিষ্যতে যারা ভর্তি হবে তাদের জন্য আমরা অনলাইন, অফলাইন দুইটাই রাখা যায় কিনা সে বিষয়ে আলোচনা করছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর এস এম মনিরুল হাসান চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘পরীক্ষাগুলো আমরা সশরীরে নেয়ার বিষয়েই চিন্তা ভাবনা করছি। অনলাইনে পরীক্ষা নেয়ার মতো ওই ধরনের সক্ষমতা আমাদের দেশে এখনো তৈরি হয়নি। একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।’

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ফের বাড়তে থাকায় শিক্ষার্থীদের সেশনজট কমাতে আটকে থাকা পরীক্ষাসমূহ অনলাইনে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। অনলাইনে পরীক্ষা কোন পদ্ধতিতে নেয়া হবে তা নির্ধারণ করতে গত রোববার (২৩ মে) দুপুরে অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটির এক সভায় উপ-উপাচার্য প্রফেসর বেনু কুমার দেকে আহ্বায়ক ও ডেপুটি রেজিস্ট্রার (একাডেমিক) সৈয়দ মনোয়ার আলীকে সদস্য সচিব করে এই কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিতে সব অনুষদের ডিন, আইসিটি সেলের পরিচালক ও রেজিস্ট্রারকে সদস্য করা হয়েছে।

Din Mohammed Convention Hall

এমআইটি/এমএহক

ManaratResponsive

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm